Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha


ব্রিটিশ মন্ত্রী আলেস্টার বার্ট

তত্ত্বাবধায়ক বিষয়টি বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ


সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
লন্ডন: বাংলাদেশ কিভাবে জাতীয় নির্বাচন করবে তার সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার এককভাবে বাংলাদেশের। ব্রিটেনের ফরেন অ্যান্ড কমনওয়েলথ মিনিস্ট্রির জুনিয়র মন্ত্রী আলেস্টার বার্ট সম্প্রতি হাউস অব কমন্সে ওঠা বাংলাদেশে বিরোধী দলের তত্বাবধায়ক সরকার ইস্যু নিয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে এ মন্তব্য করেন।

ব্রিটেনের বেডফোর্ড থেকে নির্বাচিত ক্ষমতাসীন দলের এমপি রিচার্ড ফুলারের করা বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচনের পূর্বে তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সম্পর্কে বাংলাদেশের প্রতি ব্রিটেনের কোনো পরামর্শ আছে কি না-- এমন এক প্রশ্নের উত্তরে ফরেন অফিস মিনিস্টার উপরোক্ত মন্তব্য করেন।

আলেস্টার বার্ট বলেন, ব্রিটিশ সরকার বারবারই বলে আসছে, তত্বাবধায়ক সরকার বিষয়টি বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন বিষয়। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার এককভাবে বাংলাদেশের। তবে বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও তত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুতে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তাদের সাথে ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের বেশ কয়েকটি বৈঠক হয়েছে বলে হাউস অব কমন্সকে জানান ফরেন অফিস মিনিস্টার।

তিনি বলেন, ব্রিটিশ ফরেন সেক্রেটারি উইলিয়াম হেগ সম্প্রতি বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রী দীপু মনির সাথেও দেশটির গণতন্ত্রের ভবিষ্যত নিয়ে কথা বলেছেন। বাংলাদেশ কিভাবে নির্বাচন করবে তা তাদের নিজেদেরই ঠিক করা উচিত বলে মন্তব্য করে ফরেন অফিস মিনিস্টার আলেস্টার বার্ট বলেন, তবে নির্বাচন যে পদ্ধতিতেই হউক, দেশটিতে একটি অবাধ, সুষ্টু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন দেখতে চায় ব্রিটেন।

ইলিয়াস নিখোঁজ বিষয়ে হাউস অব লর্ডসে আলোচনা এদিকে, বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর নিখোঁজ বিষয়ে ফরেন অফিসের তৎপরতা সম্পর্কে হাউস অব লর্ডসে প্রশ্নের মুখোমুখি হয়েছিলেন ফরেন অ্যান্ড কমনওয়েলথ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত স্টেট মিনিস্টার লর্ড হাওয়েল অব গিলফোর্ড।

সোমবার লর্ড হ্যারিস অব হ্যারিঙ্গে লর্ড হাওয়েলের কাছে জানতে চান, বিএনপি নেতা এম ইলিয়াস আলী ও অন্যান্য নিখোঁজ বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্ধারের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে ব্রিটিশ সরকার কূটনৈতিকভাবে কোনো লবি করছে কি না।

উত্তরে লর্ড হাওয়েল বলেন, বিরোধী নেতা এম ইলিয়াস আলীর নিখোঁজ বিষয়ে ব্রিটিশ সরকার পুরোপুরি অবহিত আছে। তিনি জানান গত ৯ মে ঢাকাস্থ ব্রিটিশ হাইকমিশনার ও আরও ৮টি ইউরোপিয়ান কান্ট্রির অ্যাম্বাসেডর বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে নিখোঁজ ইলিয়াস আলীসহ অন্যান্য গুমের ঘটনার বিষয়ে তদন্তের অগ্রগতি জানতে চেয়েছেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে ব্রিটিশ হাইকমিশনার ও ইউরোপিয়ান কান্ট্রির অ্যাম্বাসেডররা ইলিয়াস আলীকে উদ্ধার ও এই নিখোঁজের কারণ অনুসন্ধানে বাংলোদেশ সরকারের সর্বোচ্চ তৎপরতা আশা করেছেন।

লর্ড হাওয়েলের কাছে লর্ড হ্যারিস অব হ্যারিঙ্গে আরও জানতে চান যে,
ইলিয়াস আলীর মত অন্যান্য গুম এর বিষয়ে ব্রিটিশ ফরেন অফিস অবহিত আছে কি না।

তিনি জানান, গত ডিসেম্বরে নাজমুল ইসলাম নামের একজন স্থানীয় বিএনপি নেতাকে অপহরণ করে হত্যার ঘটনা ঘটছে বাংলাদেশে। লর্ড হ্যারিঙ্গে আরও জানান, বিবিসি’র হিসেব মতে গত বছর একই কায়দায় প্রায় ৩০ জন মানুষ নিখোঁজ হয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে, এইসব নিখোঁজ ঘটনার সাথে পুলিশ ও র‌্যাব জড়িত রযেছে।

হ্যারিঙ্গে আরও জানতে চান, নিখোঁজদের উদ্ধার ও তাদের পরিবারের শান্তি ফিরিয়ে আনা ও এই ধরনের ঘটনা বন্ধে ব্রিটিশ সরকার কি কোনো ভূমিকা রাখছে? উত্তরে লর্ড হাওয়েল বলেন, এটি অবশ্যিই ঠিক যে, এই ধরনের অবাঞ্চিত ঘটনা খুবই খারাপভাবে কোনো একটি সমাজের নেতিবাচক ভাবমূর্তি তুলে ধরে। ইইউ’র নেতৃত্বে গত ফেব্রুয়ারি মাসে একটি প্রতিনিধিদল
বাংলাদেশ সফর করে এ বিষয়গুলো নিয়ে আমাদের চিন্তার বিষয়টি বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরেছে। পাশাপাশি ফরেন সেক্রেটারী উইলিয়াম হেগসহ ব্রিটেনের অন্যান্য সিনিয়র মন্ত্রীরাও সরাসরি ব্যক্তিগত ভাবে যোগাযোগ করে বিষয়গুলো নিয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রীসহ অন্যান্যদের সাথে কথা বলেছেন। আমরা আমাদের দুঃচিন্তার বিষয়টি পরিষ্কারভাবে বাংলাদেশের কাছে তুলে ধরতে সম্ভাব্য সব সুযোগেরই ব্যবহার করছি।

‘ব্রিটিশ জনগণ প্রশ্ন করতে পারে, বাংলাদেশ নিয়ে কেন আমরা এত কনসার্নড,’ একথার উল্লেখ করে লর্ড হাওয়েল বলেন, বাংলাদেশ এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ, যে দেশটি ব্রিটেনের ডিপার্টমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনেল ডেভেলপমেন্ট (ডিএফআইডি)
প্রজেক্টের অন্যতম বড় সাহায্যগ্রহণকারী দেশ। পরবর্তী চার বছরে বাংলোদেশের উন্নয়নে ব্রিটেন থেকে ১ বিলিয়ন পাউন্ডের উন্নয়ন সাহা্য্য যাবে বাংলাদেশে।

হাওয়েল বলেন, বাংলাদেশ নামক দেশটিতে ব্রিটেন স্থিতিশীলতা দেখতে চায়, দেখতে চায় অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি।

লর্ড হোসেইন এ সময় হাওয়েলের কাছে জানতে চান, ইলিয়াস নিখোঁজের বিষয়টি তদন্তের জন্য ইন্টারন্যাশনেল হিউম্যান রাইটস অর্গেনাইজেশনকে সুযোগ দেয়ার বিষয়ে বাংলাদেশকে ব্রিটেন অনুরোধ জানাবে কি না? উত্তরে লর্ড হাওয়েল না সূচক জবাব দিয়ে বলেন, একটি নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ তদন্তের বিষয়ে ব্রিটেন অনুরোধ করবে কি না, এমন প্রশ্নের উত্তরে আমি বলতে পারি, হ্যাঁ, এটি আমরা করতে পারি এবং করছিও। এবং এ বিষয়ে আমাদের প্রচেষ্টা আমরা অব্যাহতও রাখবো।

তিনি বলেন, একটি বিষয়ে আমাদের একমত হতে হবে যে, বাংলাদেশকে তমসাচ্ছন্ন রাজনৈতিক পরিবেশ থেকে বের করে নিয়ে আসতে হলে, এর মূল উদ্যোগ আসতে হবে বাংলাদেশের ভেতর থেকে। বাংলাদেশে একটি স্থিতিশীল রাজনৈতিক
পরিবেশ ফিরিয়ে আনা, দেশটির সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া নিশ্চিত করতে নির্দিষ্ট সময়ে একটি স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করা, দারিদ্র থেকে বেরিয়ে আসতে দেশটির জনগণকে সহযোগিতা করা এবং পরিবেশগত চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমরা শুধু বাহির থেকে দেশটিকে সহযোগিতা দিতে
পারি।

এ পরযায়ে আলোচনায় অংশগ্রহণ করে ব্রিটেনের অল পার্টি পার্লামেন্টারি হিউম্যান রাইটস গ্রুপের ভাইস চেয়ার লর্ড এভিবারী বলেন, গুম বিষয়ে তদন্তের জন্যে জাতীসংঘের সংশ্লিষ্ট ওয়ার্কিং গ্রুপকে বাংলাদেশ সরকার আমন্ত্রণ জানাতে পারে। এটি একটি প্রোপার সংস্থা যা শুধুমাত্র সাম্প্রতিক গুম ঘটনাগুলো নয়, অতীতের সব ঘটনাই তদন্ত করতে পারে, যোগুলোর সাথে র‌্যাব জড়িত ছিল বা রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

লর্ড হাওয়েল একে একটি ভালো প্রস্তাব উল্লেখ করে জানান, বিষয়টি নিয়ে তিনি ফরেন অফিসের সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলবেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৪১৩ ঘণ্টা, ২৪ মে, ২০১২

0 comments:

Post a comment

Popular Posts