Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

জয়নুল আবদীন ফারুকের দাবি

লন্ডনে তারেককে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা!


সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
লন্ডন: বিএনপি’র সিনিয়রভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহামনের লন্ডনেরবাসায় গভীর রাতে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। আর তা হয়েছে স্থানীয় বাংলাদেশ হাইকমিশনের নির্দেশে। চাঞ্চল্যকর এই অভিযোগটি করেছেন লন্ডন সফররত বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক। ব্রিটেনের অল পার্টি পার্লামেন্টারি হিউম্যান রাইটস কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান লর্ড এভিবুরির কাছে তিনি এ অভিযোগ তুলে ধরেন।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন। প্রেস মিনিস্টার রাশেদ মিথ্যা বানোয়াট বলে জানিয়েছেন প্রেস মিনিস্টার রাশেদ চৌধুরী।

ফারুক্ এভিবুরিকে জানান চলতি বছরের গ্রীস্মে কোনো এক রাতে একদল সন্ত্রাসী তারেক রহমানের লন্ডনস্থ বাসভবনে আক্রমন করার চেষ্টা করে। এই আক্রমণে সন্ত্রাসীরাস্থানীয় বাংলাদেশ হাইকমিশনের একটি গাড়ীও ব্যবহার করে।

এঘটনায় ব্রিটিশ পুলিশে অভিযোগ করলেও তাদের পক্ষ থেকে এখনওকোন সাড়া পাওয়া যায়নি বলেও লর্ড এভিবুরির কাছে অভিযোগ জানান বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ।

এভিবুরি এসময় পুলিশ অভিযোগের নথিপত্র সরবরাহ করা হলে বিষয়টি তিনি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করবেন বলে জানান।

লর্ড এভিবুরির অফিস সূত্রে এ খবর জানার পর বাংলানিউজের পক্ষ থেকে জয়নুল আবেদিন ফারুকের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। রোববার ভোরেই তার জার্মানির উদ্দেশে লন্ডন ত্যাগ করার কথা রয়েছে। ফারুকের সাথে এভিবুরি অফিসে উপস্থিত যুক্তরাজ্য বিএনপি‘র সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম এ মালেকের কাছে অভিযোগটির সত্যতা জানতে চাইলে তিনি বিস্তারিত কিছু বলতে চাননি। তবে ওই আক্রমনের ঘটনা সত্যি বলে তিনি বাংলানিউজকে জানান।

চলতি সামারের কোন সময় এই আক্রমন হয়েছে বাংলানিউজের এমনপ্রশ্নের উত্তরে মালেক বলেন, সময়টা আমার জানা নেই। তবেআক্রমনের সময় বাংলাদেশ হাইকমিশনের একটি গাড়ী ছিল, যারছবি তুলে রাখা হয়েছে। তিনি বলেন আসলে বিষয়টি নিয়ে বেশি জানাজানি হোক এটা তারেক রহমান চাননি বলেই এতদিন পর্য্ন্ত বিষটি কাউকে জানতে দেওয়া হয়নি, বলেন এম এ মালেক।

ব্রিটেনের মাটিতে তারেক রহমানের মত একজন হাই প্রোফাইল রাজনীতিকের বাসায় সন্ত্রাসী আক্রমনের ঘটনা তো আন্তর্জাতিক খবর হওয়ার দাবি রাখে, মালেককে এ বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিলে তিনি বলেন, দেশ ও কমিউনিটির সম্মান ক্ষুন্ন হবে বলেই আমাদের নেতা বিষয়টি মিডিয়ায় আনতে চাননি।

বাংলাদেশ হাইকমিশন এই হামলার সাথে জড়িত অভিযোগ করে মালেক বলেন, আমরা জানতে পেরেছি বাংলাদেশ থেকে ৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমান্ডো লন্ডনে পাঠানো হয়েছে। এরা সার্বক্ষনিক হাইকমিশনের তত্বাবধানেই অবস্থান করে। বিষয়টি ব্রিটিশ সরকারও জানে বলে মন্তব্য করেন মালেক।

এদিকে, লর্ড এভিবুরির কাছে উত্থাপিত এই চাঞ্চল্যকর অভিযোগেরসত্যতা সম্পর্কে বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলেপ্রেস মিনিস্টার রাশেদ চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, সামারে এতবড়একটি ঘটনা ঘটে গেল, অথচ আজ শুনলাম। হাইকমিশনের বিরুদ্ধে উত্থাপিত এই অভিযোগ প্রত্যাখ্যানকরে প্রেস মিনিষ্টার বলেন, এই ধরনের একটি মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত অভিযোগ বিরোধী দলীয় একজন চিফ হুইপ এর পদাধিকারধারী রাজনীতিক কিভাবে উত্থাপন করেন তা আমার বোধগম্য নয়।

রাশেদ চৌধুরী বলেন, কোন দিন কোন সময় ঘঠনা ঘটেছে, পুলিশের কাছে অভিযোগের প্রমানসহ তার বিস্তারিত দিলে হাইকমিশনরে পক্ষ থেকেও বিষয়টি নিয়ে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের সাথেআমরা যোগাযোগ করতে পারি। কারন তারেক রহমানের মত দেশেরএকজন হাই প্রোফাইল রাজনীতিকের বাসায় এমন সন্ত্রাসী আক্রমনেরঘটনা বিশ্ব মিডিয়ায়ও তোলপাড় তোলার কথা।

কিন্তু মিডিয়া বাব্রিটেনের বাঙালি কমিউনিটির কাউকেই বিষয়টি না জানিয়ে ঘটনারএতদিন পর বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ বাংলাদেশ থেকে এসে লর্ড এভিবুরির কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করলেন, এটি সত্যিই রহস্যজনক।

রাশেদ চৌধুরী বলেন, মামলাসহ অন্যান্য কারণে বিভিন্ন সময় তারেক রহমানের বিভিন্ন কাজের জন্যে হাইকমিশনে লোকজন আসে। আমরা তড়িৎ তা করে দেই। কোনদিন হাইকমিশন এই কাজের জন্যে তারেক রহমানকে হাইকমিশনেও ডাকেনি। আর আজ তার বাসায় আক্রমনের অভিযোগ উত্থাপন করা হলো হাইকমিশনের বিরুদ্ধে, এটি সত্যিই দু:খজনক। বাংলাদেশ থেকে আসা চার কমান্ডো সম্পর্কে হাইকমিশনের মন্তব্য জানতে চাইলে প্রেস মিনিষ্টার রাশেদ চৌধুরী বলেন, এসব খবরই মিথ্যা। কোন প্রমানের ভিত্তিতে এইখবর রটানো হচ্ছে তা আমাদের বোধগম্য নয়।

এদিকে, লর্ড এভিবুরি ছাড়াও শুক্রবার ইউরোপীয় পার্লামেন্টেকনজারভেটিভ পার্টির ফরেন এফেয়ার্স বিষয়ক মূখপাত্র চার্লস টেন এমপি‘র সাথে দেখা করেও অন্যান্য অভিযোগের সাথে তারেক রহমানের লন্ডনের বাসায় আক্রমনের অভিযোগ উত্থাপন করেন বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ জয়নাল আবেদিন ফারুক। বাংলানিউজেরকাছে এ বিষয়টিরও সত্যতা স্বীকার করেছেন বিএনপি নেতা এম এমালেক। টেনকের কাছে অন্যান্য অভিযোগের মধ্যে রয়েছে টিপাইমুখবাধ, তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা তুলে দেওয়া, বিরোধী দলীয় চিফ হুইপের উপর পুলিশী নির্যাতনসহ সরকারের বিভিন্ন `গণবিরোধী‘ কর্মকাণ্ড।

এদিকে, নিজের উপর পুলিশী নির্যাতনের অভিযোগ উত্থাপন করেজয়নুল আবেদিন ফারুক লর্ড এভিবুরিকে জানান, তাঁর উপর পুলিশীআক্রমনে নেতৃত্বদানকারী দুই পুলিশ কর্মকর্তা ডেপুটি পুলিশকমিশনার হারুন ও সহকারী পুলিশ কমিশনার বিপ্লবের বিরদ্ধে অভিযোগ করার পরও সরকার এদের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ নেয়নি।লর্ড এভিবুরি বিষয়টি হিউম্যান রাইটস অব পার্লামেন্টারী কমিটিরইন্টারপার্লামেন্টারী ইউনিয়নে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

ভারতের একতরফা টিপাইমুখ বাধ দেয়ার উদ্যোগের প্রতি ফারুক এভিবুরিরদৃষ্টি আকর্ষণ করলে এভিবুরি বলেন বিষয়টি ভারত-বাংলাদেশের দ্বি-পাক্ষিক। ব্রিটেন এ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে পারেনা। তত্বাবধায়কসরকার সিস্টেম তুলে দেয়া বিষয়েও অভিযোগ করেন ফারুক। উত্তরেএভিবুরি বলেন এটি বাংলাদেশের জনগণের একান্তই নিজস্ব বিষয়।

বিষয়টি নিয়ে পার্লামেন্টে গিয়ে সরব হওয়ার জন্যে তিনি বিএনপিকে আহবান জানান।

বাংলাদেশ সময় ২৩০৯ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৬, ২০১১

0 comments:

Post a comment

Popular Posts