Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

বাংলাদেশকে স্মরণ করলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন করেসপন্ডেন্ট 
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

লন্ডন: ব্রিটিশ পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর সেশনে বাংলাদেশকে স্মরণ করলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন।

শ্যাডো ইন্টারন্যাশনালের ডেভলপমেন্ট মিনিস্টার বাঙালি বংশোদ্ভুত রোশনারা আলীর এক প্রশ্নের জবাবে বুধবার পার্লামেন্ট সেশনে ক্যামেরন বাংলাদেশকে স্মরণ করেন।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ দেশ হিসেবে ব্রিটেন আরও বেশি করে বাংলাদেশকে কিভাবে সাহায্য করতে পারে এ বিষয়টিই প্রধানমন্ত্রীর কাছে জানতে চেয়েছিলেন রোশনারা।

শুক্রবার বাংলাদেশের জন্মের চল্লিশ বছর পূর্ণ হতে চলেছে, এই খবরটি স্মরণ করিয়ে দিয়ে রোশনারা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, ‘জন্মের মাত্র চল্লিশ বছরের মধ্যেই বাংলাদেশ নামক দেশটি আজ অস্তিত্ব ঝুঁকিতে পড়েছে।’

জলবাযু পরিবর্তন সৃষ্ট ঝুঁকিতে বাংলাদেশ দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ দেশ, ক্যামেরনকে এই কথাটি স্মরণ করিয়ে দিয়ে রোশনারা জানতে চান, এই ঝুঁকি মোকাবেলায় বাংলাদেশকে দেওয়া ব্রিটেনের সাহায্যের পরিমাণ আরও বাড়ানোর সম্ভাবনা আছে কি না।’

উত্তরে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ জন্মের চল্লিশ বছর পূর্ণ করতে যাচ্ছে। এমনি একটি গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দেশটি জলবায়ু পরিবর্তন সৃষ্ট ঝুঁকি মোকাবেলা করছে। ব্রিটেন এ বিষয়ে অবশ্যই সচেতন রয়েছে।’

তিনি রোশনারাকে বলেন, ‘বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান উন্নয়ন সহযোগী ব্রিটেন। সাম্প্রতিক সময়ে ব্রিটেনের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন তহবিলের অন্যতম বড় গ্রহীতা বাংলাদেশ।’

ব্রিটেন- বাংলাদেশ পারস্পরিক সম্পর্কও অত্যন্ত চমৎকার উল্লেখ করে ক্যামেরন পার্লামেন্টকে জানান, জলবায়ু পরিবর্তনসহ বিভিন্ন ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সাথে তার কথা হয়েছে। এ বিষয়ে দুই দেশ একযোগে কাজও করতে চায়।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জলবাযু পরিবর্তন ইস্যুর সাথে সাথে মানবাধিকারসহ বাংলাদেশের সার্বিক অবস্থা সম্পর্কেও আমাদের মনযোগী হওয়া উচিত।’

দু’দেশের পারস্পরিক চমৎকার সম্পর্কের ভিত্তিতেই ব্রিটেন-বাংলাদেশ একযোগে কাজ করতে চায়, জানিয়ে রোশনারাকে আশ্বস্ত করেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, জলবায়ু পরিবর্তন ঝুঁকি মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যাতে আরও সক্রিয়ভাবে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ায়, এ নিয়ে ক্যাম্পেইন করছেন রোশনারা। তার এই ক্যাম্পেইন শুধু ব্রিটেনের ভৌগলিক সীমানায়ই সীমাবদ্ধ নয়, এ ইস্যু নিয়ে তিনি যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশও সফর করেছেন ইতোমধ্যে। জলবায়ু পরিবর্তন ঝুঁকি মোকাবেলায় ব্রিটেন যাতে বাংলাদেশের সাহায্যের পরিমান আরও বাড়ায় এ বিষয়ে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তিনি সক্রিয় ভূমিকা রাখছেন।

সম্প্রতি ডারবানে অনুষ্ঠিত জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সম্মেলনের আগে বাংলাদেশ সফর করেন রোশনারা। ডারবান সম্মেলনে জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে সোচ্চার হওয়ার বিষয়ে ওই সময় ঢাকাকে পরামর্শও দেন তিনি।

বাংলাদেশে যাওয়ার প্রাক্কালে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্যেও ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহবানও জানিয়েছিলেন রোশনারা।

বাংলাদেশ সময়: ১০৪৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৫, ২০১১

0 comments:

Post a comment

Popular Posts