Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

হাসপাতাল ছেড়েছেন রাষ্ট্রপতি, জনসান্নিধ্যে থাকার পরামর্শ


সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
মেলিয়া হোয়াইট হাউস হোটেল, লন্ডন থেকে: লন্ডনে শারিরীক চেকআপ শেষে হাসপাতাল ছেড়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান। হাসপাতাল ত্যাগের আগে চিকিৎসকরা রাষ্ট্রপতিকে জনসান্নিধ্যে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার লন্ডন সময় দুপুর ১টায় হাসপাতাল ছেড়ে রাষ্ট্রপতি তাঁর নির্ধারিত হোটেল কেন্দ্রীয় লন্ডনের ‘মেলিয়া হোয়াইট হাউস’ এ ফিরেছেন।

হাসপাতাল ত্যাগ করার পর হোটেলে রাষ্ট্রপতির ছেলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এমপি রাষ্ট্রপতির স্বাস্থ্য অবস্থা সম্পর্কে সাংবাদিকদের কথা বলেন।

পাপন বলেন, “রাষ্ট্রপতি পুরোপুরি সুস্থ রয়েছেন। তবে, দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের শেষ পর্যায়ে জনসান্নিধ্যহীন হয়ে পড়ায় বার্ধক্যজনিত কিছু রোগে ভুগছেন রাষ্ট্রপতি।”

পাপন আরও বলেন, “আজীবন জনগণের মধ্যে থাকা একজন রাজনীতিক জনসান্নিধ্যহীন হয়ে পড়লে যা হয়, রাষ্ট্রপতির তাই হয়েছে। চিকিৎসকরা পরামর্শ দিয়েছেন যতোটুকু সম্ভব তাকে জনসান্নিধ্যে রাখতে হবে।”

এবার কেন শারিরীক অসুস্থতায় রাষ্ট্রপতিকে লন্ডন নিয়ে আসতে হলো, এমন প্রশ্নের উত্তরে রাষ্ট্রপতির তিনি বলেন, ‍“মূলত তাঁর শারিরীক চেকআপের নির্ধারিত সময় পার হয়ে যাচ্ছিল, তাছাড়া তিনি হাটতে পারছিলেন না। কোনো গুরুতর অসুস্থতা নয়, শারিরীক চেকআপের জন্যেই রাষ্ট্রপতিকে এবার লন্ডন নিয়ে আসা।”

পাপন বলেন, “ড. কে’ এর নেতৃত্বে একটি মেডিকেল টিমের তত্ত্বাবধানে রাষ্ট্রপতির শারিরীক সব পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়েছে। চেকআপ প্রতিবেদন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির হার্ট, ফুসফুস সবকিছুই ভালো রয়েছে।”

পাপন আরও বলেন, “শারিরীক চেকআপে রাষ্ট্রপতির প্রতিটি শারিরীক সমস্যা চিহ্নিত করা হয়েছে, এগুলো কোনোটিই গুরুতর কিছু নয়। পায়ের সমস্যাও হাসপাতালে ভর্তির পর থেকে কমে গেছে এবং এখন তিনি হাটতে পারছেন।”

রাষ্ট্রপতির ছেলে বলেন, “প্রায় ১২ বছর আগে জিল্লুর রহমানের শরীরে অপারেশন করার পর থেকেই ডা. কে তাঁকে নিয়মিত চিকিৎসা করে আসছেন। এবারও তাঁর নেতৃত্বে গঠিত মেডিকেল টিম রাষ্ট্রপতির শারিরীক চেকআপ করে। রাষ্ট্রপতি ৮/১০ দিনের মধ্যে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবেন বলে তাকে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।”

রাষ্ট্রপতিকে জনসান্নিধ্যে রাখতে চিকিৎসকদের দেওয়া পরামর্শ সম্পর্কে জানতে চাইলে পাপন বলেন, ‍‍“ঢাকায় ফিরে এ বিষয়টি সম্পর্কে সরকারকে জানানো হবে। সারা জীবন জনগণের মধ্যে ছিলেন জিল্লুর রহমান। রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব নেওয়ার পর স্বাভাবিকভাবেই  নিরাপত্তাজনিত কারণে রাষ্ট্রপতি অনেকটা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন।সাধারণ জনগণই নয়, নিজ আত্মীয় স্বজনের সঙ্গেও মিশতে পারছেন না তিনি।”

নাজমুল হাসান পাপন বলেন, “২০০৪ সালের ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলায় তাঁর মা রাষ্ট্রপতি পত্নী বেগম আইভি রহমান নিহত হওয়ার পর থেকেই জিল্লুর রহমান অনেকটা শারিরীকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন। রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণের পর শারিরীক অবস্থার উন্নতি হলেও জনবিচ্ছিন্নতা তাকে পুরোপুরি দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতে দেয়নি।এবার দেশে গিয়ে রাষ্ট্রপতির জনসান্নিধ্যতা বাড়ানো বিষয়ে ডাক্তারদের পরামর্শের কথা সরকারকে জানানো হবে। তিনি বলেন, জনসন্নিধ্যের ব্যবস্থা রেখেই রাষ্ট্রপতির প্রটোকল সিস্টেমটি নতুন করে রিভিউ করা হবে এটি আমরা আশা করছি।”

এদিকে, বৃহস্পতিবার হাসপাতাল ছাড়লেও নতুন মেডিসিনের প্রতিক্রিয়া জানার জন্যে ২৩ ডিসেম্বর পরযন্ত রাষ্ট্রপতি ডাক্তারদের পরামর্শে লন্ডনেই অবস্থান করবেন। ২৩ ডিসেম্বর রোববার দেশের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হওয়ার নির্ধারিত সময় থাকলেও বৃহস্পতিবার হাসপাতাল ছাড়ার পর রোববারের আগেই রাষ্ট্রপতিকে দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার চিন্তা করছিলেন সংশ্লিষ্টরা। কিন্তু ডাক্তারদের পরামর্শে নির্ধারিত সময় রোববারই রাষ্ট্রপতির দেশে যাওয়ার দিন ঠিক রাখা হয়।
উল্লেখ্য, গত ১৬ ডিসেম্বর, রোববার শারিরীক চেকআপের জন্যে রাষ্ট্রপতি লন্ডনের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন। এর আগে বিজয় দিবসের কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহণসহ রাষ্ট্রপতির সব প্রোগ্রাম বাতিল করা হয়। ঢাকায় মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্যে বিদেশিদের দেওয়া সম্মাননা অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতির অনুপস্থিতির ব্যাখ্যা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতির অসুস্থতার খবর জানিয়ে সবাইকে তাঁর জন্যে দোয়া করতে বলেন।

বাংলাদেশ সময়: ০০৪৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২১, ২০১২
Link to Article

0 comments:

Post a comment

Popular Posts