Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

চাকরিতে চাই হ্যাপিনেস, সাকসেস ও এনজয়মেন্ট: লন্ডনে মাহাথির পাশা


আনাস পাশা
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
লন্ডন থেকে: “ভবিষ্যত চাকরিতে থাকবে হ্যাপিনেস, সাকসেস ও এনজয়মেন্ট।” লন্ডনে ‘টেডএক্স’ আয়োজিত ‘দি ফিউচার অব এমপ্লয়মেন্ট, দ্যা পাওয়ার টু মেইক এ ডিফরেন্স’ শীর্ষক বক্তৃতায় আমন্ত্রিত একমাত্র তরুণ বাঙালি বংশোদ্ভুত সৈয়দ মাহাথির পাশা ভবিষ্যৎ এমপ্লয়মেন্ট সম্পর্কে এমন কথাই বললেন সবাইকে।

নিজ পকেটের অর্থ দিয়ে টিকেট কেটে টেডএক্স ইভেন্টসে বক্তব্য শুনতে আসা দর্শকরা করতালির মাধ্যমে মাহাথিরের বক্তব্যকে স্বাগত জানায়। অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে লন্ডনের ব্লাকফ্রেয়ারসে টেডএক্স আয়োজিত এ ইভেন্টসে অন্যান্য খ্যাতিমান বক্তাদের সঙ্গে মাহাথির পাশাই ছিলেন সবচেয়ে কমবয়সী।

গত সপ্তাহে ‘টেডএক্স’ ইভেন্টস অতিথিদের বক্তৃতা ইউটিউবে রিলিজ করেছে। গ্লোবাল অর্গেনাইজেশন টেডএক্স বিভিন্ন ইস্যুতে নিজ নিজ ক্ষেত্রে খ্যাতিমানদের ধারণা জানতে নিয়মিত অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানের আমন্ত্রিত বক্তারা সংশ্লিষ্ট ইস্যুতে তাদের চিন্তা ও আইডিয়ার কথা উপস্থিত দর্শক শ্রোতাদের সঙ্গে শেয়ার করেন। তাদের অনুষ্ঠানগুলোতে শ্রোতা হিসেবে উপস্থিত থাকতে চাইলে নির্ধারিত অংকের টাকা দিয়ে টিকেট কিনেই প্রবেশ করা যায়।

মাহাথির পাশা তার বক্তৃতায় ‘কাজ’কে বর্তমান সমাজের অন্যতম প্রতিপক্ষ উল্লেখ করে বলেন, “যাদের কাজ নেই, তারা কাজের খোঁজে হন্যে হয়ে ঘোরে। আর যাদের কাজ আছে তারা কোনোরকম কাজ শেষে অবসরে চলে যাওয়ার স্বপ্ন দেখেন।”

বক্তৃতায় ‘ডেলোইটস শিফট ইনডেক্স’ সার্ভের পরিসংখ্যান উল্লেখ করে মাহাথির বলেন, “শতকরা ৮০ ভাগ কর্মজীবী মানুষ তাদের কাজ নিয়ে সন্তুষ্ট নন। এ পরিসংখ্যানের রিপোর্টটি আমাদের সমাজের জন্যে মোটেই সুখকর নয়। যারা নিজেদের কাজ নিয়ে সন্তুষ্ট নন, অসন্তুষ্টির পাশাপাশি তারা ধীরে ধীরে শারীরিক ও ডিপ্রেশনের মতো মানসিক অসুস্থতায়ও আক্রান্ত হবেন, এটিই স্বাভাবিক। যত বেশি মানুষ নিজের কাজ নিয়ে অসন্তুষ্ট থাকবেন, ততই অসুস্থ মানুষের সংখ্যা বাড়বে, যা সমাজের জন্যে অবশ্যই উদ্বেগজনক।”

মাহাথির তাঁর বক্তৃতায় উদাহরণ দিয়ে বলেন, “বছরে গড়ে ৮হাজার ৭৬০ ঘণ্টায় একজন মানুষের খাওয়া, ঘুমানো ইত্যাদি দৈনন্দিন প্রাকৃতিক কাজ বাদে ৪হাজার ১৫ ঘণ্টা সময় হাতে থাকে। একজন মানুষ প্রতিদিন গড়ে ৮ ঘণ্টা কাজ করে, যা বছরে ১হাজার ৭৬০ ঘণ্টার মতো। অর্থাৎ বছরের মোট ৪৪ ভাগ সময় একজন মানুষ কাজে ব্যয় করে।”

মাহাথিরের প্রশ্ন, বছরের এই ৪৪ ভাগ সময় মানসিক অসন্তুষ্টি নিয়ে কাটানো একজন মানুষের দ্বারা কি সম্ভব? এখন প্রশ্ন হলো কেন মানুষ অসন্তুষ্টি নিয়েও অপছন্দের কাজটি করে? পছন্দ কাজ পায়নি বলেই মানুষ বাধ্য হয়ে অপছন্দের কাজ করে, মাহাথিরের ধারণা এমনটিই।

মাহাথির বলেন, “অনেকেই সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক মন্দাকে পছন্দের কাজ না পাওয়ার জন্যে দায়ী করে থাকেন। আমিও বিশ্বাস করি একটি পছন্দের কাজ পাওয়া বর্তমান সময়ে খুব সহজ নয়, বিশেষ করে তরুণদের জন্যে।”

সারা পৃথিবীতে ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সী মোট ৭৫ মিলিয়ন মানুষ কর্মহীন রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “এ কর্মহীনতা থেকে বেরিয়ে আসতেই অনেকে তার অপছন্দের কাজটিই করতে বাধ্য হন। এর মানে এই নয় যে, এর কোনো বিকল্প নেই।

বক্তৃতায় এমনটি উল্লেখ করে মাহাথির ব্রিটেনের দুই ধনাঢ্য ব্যবসায়ী লর্ড সুগার ও রিচার্ড ব্রানসনের নাম উল্লেখ করে বলেন, “তারা শূন্য থেকে শুরু করে যদি আজকের পর্যায়ে পৌঁছাতে পারেন তবে অন্যরা পারবে না কেন?”

এ প্রসঙ্গে মাহাথির পছন্দের কাজ না পেলে স্বাধীন ব্যবসা শুরুর ওপর গুরত্বারোপ করে বলেন, “শুরুটা করতে পারলে হাটি হাটি পা পা করে লর্ড সুগার বা রিচার্ড ব্রানসনের পরযায়ে পোঁছানো খুব একটা কঠিন কাজ নয়।”

শিক্ষা জীবনে সন্তানের পছন্দকে পিতামাতার গুরুত্ব দেওয়া উচিত, এমন মন্তব্য করে মাহাথির বলেন, “সন্তানের পছন্দ না, অথচ পিতামাতার ইচ্ছে সে ডাক্তার হবে, এমন প্রেসার যদি পড়াশুনার শুরুতেই দেওয়া হয়, তাহলে গোড়াতেই তো শুরু হবে মানসিক অসন্তুষ্টি, যা কর্মক্ষেত্রেও রাখবে বিরাট নেতিবাচক প্রভাব।”

বক্তৃতার শেষে মাহাথির বলেন, “ভবিষ্যৎ কাজ এমন হওয়া উচিত, যার মধ্যে থাকবে হ্যাপিনেস, সাকসেস ও এনজয়মেন্ট।

টেডএক্স এর এবারের ইভেন্টসে মাহাথির ছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, লেখক ও এডুকেশন্যাল কনসালটেন্ট টনি বুজান, ওয়েলথ ম্যানেজমেন্টে কর্মরত ডেভিড ভিলা-ক্লার্ক, লেখক ও গবেষক ড. গ্রেয়েম কডরিংটন, ‘বিজনেস ইয়োগী: হাও টু বি হ্যাপি এট ওয়ার্ক’ বইয়ের লেখক সিনেড ম্যাক মানুছ, মরগান লভেল এর হেড অব ওয়ার্কফোর্স কনসালটেন্সি মনিকা পার্কার, লেখক ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বক্তা মাইক্যাল হেপেল, লেখক ও এওয়ার্ড বিজয়ী ব্যবাসায়ী জুনিয়র অগুনইয়েমি এবং সোস্যাল মিডিয়া অ্যান্ড কেয়ারার এক্সপার্ট মেথি লিসিকা মিনসেন্ডি প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ০৩২৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৫, ২০১২
Link to Article

0 comments:

Post a comment

Popular Posts