Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়: ইউনূস সম্পর্কে দীপু মনি

লন্ডন: লন্ডনে কমনওয়েলথ জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত এক সেমিনারে নোবেলজয়ী ড. ইউনূস সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, ‘আইন সবার জন্যে সমান। সাধারণ মানুষ বা সেলিব্রেটি কেউই আইনের উর্ধ্বে নন।’ 

বৃহস্পতিবার বিকেলে হাউস অব কমন্সে ‘আনলকিং দ্য পটেনশিয়েল অব বাংলাদেশি ডায়াসফোরা’ শীর্ষক এক সেমিনারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই মন্তব্য করেন। 

কমনওয়েলথ জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রিতা পেইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারের প্যানেলিস্ট হিসেবে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশে সাবেক ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত পিটার ফাওলার, সাবেক ব্রিটিশ এমপি কিথ বেস্ট, প্রখ্যাত ব্রিটিশ-বাংলাদেশি ব্যবসায়ী সিমার্ক চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদ ওবিই, বিবিসি বাংলা বিভাগের প্রধান সাবির মোস্তফা ও ইফতি ইসলাম।

ড. ইউনূস সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রামীণব্যাংক একটি নোবেল বিজয়ী প্রতিষ্ঠান, এটি রাষ্ট্রের একটি অঙ্গ। বাংলাদেশ যে প্রতিষ্ঠান নিয়ে গর্ব করে, সেই প্রতিষ্ঠান একটি এনজিও হিসেবে সারা বিশ্বে পরিচিত করার চেষ্টা হয়েছে ও হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রের আইন-কানুন মেনেই সব প্রতিষ্ঠান চালাতে হয়। অথচ আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বন্ধু-বান্ধব আছে বলেই ড. ইউনূস রাষ্ট্রের আইন-কানুনকে তোয়াক্কা না করে তার ইচ্ছেমতো এই প্রতিষ্ঠানটি ব্যবহার করতে চেয়েছেন।’

দীপু মনি বলেন, ‘গ্রামীণব্যাংক নিয়ে সরকারতো আদালতে যায়নি, আদালতে গিয়েছেন ড. ইউনূস। আদালত যদি তার পক্ষে রায় না দেয়, তাহলে সরকারের কী করার আছে?’

দীপু মনি বলেন, ‘১৯৮৩ সালে গ্রামীণব্যাংক প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ড. ইউনূস ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। গ্রামীণব্যাংকের সার্বিক কার্যক্রম তদন্তে গঠিত সরকারি পর্যালোচনা কমিটির প্রতিবেদনে ব্যাংক পরিচালনার ক্ষেত্রে বিভিন্ন অসঙ্গতির চিত্র উঠে আসায় অনুমতি না নিয়ে পদে থাকার কারণ দেখিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক ড. ইউনূসকে তার পদ থেকে অব্যাহতি দেয়। এই আদেশকে চ্যালেঞ্জ করে আদালতে গেলে আদালতও ইউনূসের বিপক্ষে রায় দেয়।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘একটি আইনানুগ প্রতিষ্ঠান হিসেবে কোনো ব্যক্তির খেয়াল-খুশিমত গ্রামীণব্যাংক চলতে পারে না। এই ব্রিটেন বা কোনো দেশেই কোনো প্রতিষ্ঠানকে এভাবে চলতে দেওয়া হয় না।’

সেমিনারের বক্তব্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের উন্নয়নে অভিবাসী বাংলাদেশিদের অবদানের প্রশংসা করে বলেন, ‘দেশের অর্থনীতি গতিশীল করতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের অবদান অনস্বীকার্য।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রিটেনের মূল ধারার রাজনীতিতেও প্রবাসী বাংলাদেশিদের ব্যাপক অংশগ্রহণ ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার প্রশংসা করেন। 

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের অভিবাসী কমিউনিটি বিদেশে দেশের ইতিবাচক ইমেজই তুলে ধরছেন, এমনটিই বিশ্বাস করে আমাদের সরকার।’

বিদেশে জন্ম নেওয়া ও বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মকে দেশে বিনিয়োগের আহবান জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের ক্রমবিকাশমান অর্থনীতিকে চূড়ান্ত লক্ষ্যে নিয়ে যেতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের নতুন প্রজন্ম বিশাল ভূমিকা রাখতে পারে।’

এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশিদের মালিকানাধীন রেস্তোরাঁশিল্প ব্রিটেনের অর্থনীতিতে যে ভূমিকা রাখছে, তা আজ ব্রিটিশ মূলধারায়ও স্বীকৃত।’

প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের একটি সুদৃঢ় সাংস্কৃতিক সেতুবন্ধনও সৃষ্টি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বাংলাদেশ সময়: ১০৩৯ ঘণ্টা, অক্টোবর ২২, ২০১১
Link to Article


0 comments:

Post a comment

Popular Posts