Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

বার্মিংহামে জামায়াত-জনতা মুখোমুখি!


সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম


লন্ডন: বহির্বিশ্বে প্রথম বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলনের স্মৃতি বিজড়িত ব্রিটেনের বার্মিংহামের ঐতিহাসিক স্মলহিথ পার্কে সাঈদীর মুক্তির দাবিতে জামায়াতের আয়োজিত এক সমাবেশ নিয়ে জামায়াত-জনতা মুখোমুখি অবস্থান নেয় মঙ্গলবার।

স্থানীয় সময় দুপুর ১টায় জামায়াত সমর্থকদের পূর্ব ঘোষিত এ সমাবেশ শুরুর আগেই স্থানীয় তরুণ-জনতা মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত ওই স্থানের পবিত্রতা রক্ষায় পার্কে অবস্থান নিলে দুপক্ষের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

এক পর্যায়ে উত্তেজনা সংঘর্ষে পরিণত হওয়ার উপক্রম হলে পুলিশ দ্রুত এসে হস্তক্ষেপ করে। পুলিশের উপস্থিতিতে কিছুক্ষণ ধরে চলে স্লোগান-পাল্টা স্লোগান।

এ সময় তরুণদের পাশাপাশি জামায়াত প্রতিরোধে উপস্থিত জনতা ‘মুক্তিযুদ্ধের বাংলায়, রাজাকারের ঠাঁই নাই’, ‘আর কোনো দাবি নাই, রাজাকারের ফাঁসি চাই’, ‘মুক্তিযুদ্ধের হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার’ ইত্যাদি স্লোগানে মুখরিত করে তোলেন।

এসময় পুলিশ ব্যারিকেডের মধ্যে পার্কের দুদিকে অবস্থান নেয় দুইপক্ষ।

জামায়াত সমর্থকদের সঙ্গে বিপুল সংখ্যক পাকিস্তানি ও সোমালিয়ান নারীদের সাঈদীর মুক্তির দাবিতে অংশ নিতে দেখা যায়।

এর আগে জামায়াত সমর্থকরা ঊর্দু ভাষায় বিভিন্ন ধরনের লিফলেট তৈরি করে বার্মিংহামের পাকিস্তানি ও সোমালিয়ান কমিউনিটিতে বিতরণ করে।

এদিকে, ঘণ্টাখানেক স্লোগান, পাল্টা স্লোগান চলার পর জামায়াত সমর্থকরা পার্ক ত্যাগ করে। পরে বিক্ষুব্ধ জনতাও যার যার ঘরে ফিরে যান।

জামায়াত সমর্থকদের বিরুদ্ধে তরুণ প্রজন্মের এই প্রতিরোধে অংশ নেন একাত্তরে বহির্বিশ্বে প্রথম বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলনকারী মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক ইব্রাহিম আলী।

তার সঙ্গে নেতৃস্থানীয় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সিপিবির মশুদ আহমেদ, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির এলাহি হক সেলু, আওয়ামী লীগ নেতা হিফজুর রহমান, মাহবুব আলম চৌধুরী, বেলাল আহমেদ, জুনেদ আহমেদ, তারেক চৌধুরী ও কবির উদ্দিন।

বার্মিংহাম আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, গণজাগরণ মঞ্চ, সাপোর্ট বাংলাদেশ, স্প্রিট-৭১ ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠন নিজ নিজ ব্যানারে যুদ্ধাপরাধী বিরোধী এই প্রতিরোধে অংশ নেন।

জামায়াত সমর্থকরা এক সপ্তাহ ধরে এ সমাবেশের প্রচার কাজ চালিয়ে আসলেও বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলনের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত এই পার্কে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীদের সমাবেশের ঘোষণায় ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সোমবার মধ্যরাতে তারা সিদ্ধান্ত নেন, মুক্তিযুদ্ধের এই পবিত্র স্থান কোনোভাবেই মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীদের হাতে অপবিত্র হতে দেবেন না।

মোবাইল ট্যাক্স ও ফেসবুকের মাধ্যমে তারা মঙ্গলবার জামায়াত সমর্থকদের পার্কে পৌঁছানোর আগেই পতাকা উত্তোলনের স্মৃতি বিজড়িত পার্কের নির্ধারিত অংশে গিয়ে সমবেত হতে কমিউনিটির প্রতি আহ্বান জানান।

জামায়াত সমর্থকদের নির্ধারিত সময় দুপুর দেড়টার আগেই  দুপুর ১টায় মুক্তিযোদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা অবস্থান নেন পার্কের পতাকা উত্তোলনের স্মৃতি বিজড়িত অংশে।

সেখানে তারা জোহরের নামাজ আদায় করেন। জামায়াত সমর্থকরা অবস্থান নেন পার্কের অন্য অংশে।

এ সময় স্লোগান, পাল্টা স্লোগানে ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়ার পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে পুলিশ দুই পক্ষের মাঝখানে এসে অবস্থান নেয়।

জামায়াত প্রতিরোধে অংশ নেওয়া আওয়ামী লীগ নেতা মিসবাউর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, “বহির্বিশ্বে প্রথম বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলনের স্মৃতি বিজড়িত স্থান মুক্তিযুক্তের বিরোধীদের পদভারে অপবিত্র হোক, সেটি আমরা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারিনি।”

তিনি বলেন, “এক সপ্তাহ আগ থেকেই জামায়াত সমর্থকরা পার্কে সমাবেশ করার প্রস্তুতি নিলেও আমরা এদের বিনা চ্যালেঞ্জে ছেড়ে দিতে চাইনি।”

তিনি বলেন, “আমরা সফল হয়েছি। তারা পতাকা উত্তোলনের স্মৃতি বিজড়িত স্থানে আসতেই পারেনি। পার্কে সমাবেশ করার কথা ছিল। আমরা উপস্থিত থাকার সময়  তাও করতে পারেনি।”

প্রতিরোধে নেতৃত্বদানকারী যুবনেতা সোহেল বলেন, “আমাদের ধমণীতে শহীদের রক্ত। এই রক্ত কোনোদিনও পরাভব মানবে না।”

তিনি বলেন, “প্রতিটি যুদ্ধাপরাধীর বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত, যেখানেই যুদ্ধাপরাধী সমর্থক থাকবে, সেখানেই আমাদের প্রতিরোধ আন্দোলন চলবে।”

বার্মিংহাম গণজাগরণ মঞ্চ-এর মুরাদ খান বাংলানিউজকে বলেন, “৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে যে পাকিস্তানিদের আমরা পরাজিত করেছি, সেই পাকিস্তানি ও সোমালিয়ানদের নিয়ে যুদ্ধাপরাধী সমর্থক জঙ্গিরা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত স্থান অপবিত্র করতে চায়! কত বড় স্পর্ধা তাদের!

আমরা এটি কোনোভাবেই মেনে নিতে পারিনি, পারবোও না কোনোদিন। ‘যেখানেই এদের আস্ফালন, সেখানেই প্রতিরোধ’- এভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছি আমরা।

প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা ইব্রাহিম আলী বলেন, ‘‘বেঁচে থাকতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দেখে যাওয়ার আশা যখন ছেড়েই দিয়েছিলাম, তখনই তরুণ প্রজন্মের গণজাগরণ আবারও মুক্তিযুদ্ধে ফিরে যাওয়ার প্রেরণা নিয়ে আমাদের মধ্যে উপস্থিত হয়েছে। তরুণদের এ আন্দোলনে আমরা আছি, থাকতে চাই শেষ পর্যন্ত।’’

এদিকে, সাঈদী সমর্থক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বয়স্ক এক ব্যক্তি টেলিফোনে বাংলানিউজকে বলেন, “ভারতীয় হিন্দুদের ইশারায় বাংলাদেশ থেকে ইসলাম নির্মূলের লক্ষ্যেই সাঈদী সাহেবকে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসি দেওয়ার চেষ্টা করছে আওয়ামী লীগ সরকার।”

তিনি বলেন, “আমাদের নেতারা বলেছেন- সাঈদী সাহেবকে রক্ষার আন্দোলনে আমরা যদি শহীদ হই, তাহলে বেহেস্তপ্রাপ্তি আমাদের নিশ্চিত!”

বাংলাদেশ সময়: ০৯০৬ ঘণ্টা, মার্চ ০৬, ২০১৩
Link to article

0 comments:

Post a comment

Popular Posts