Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

banglanews24.com::::: লন্ডনে বাংলাদেশি সাংবাদিকদের ব্যতিক্রমী নৌকাদৌড়

লন্ডন: গ্রামবাংলার চিরায়ত উৎসব নৌকাদৌড় বা নৌকাবাইচ। এক সময়ের ভাটিবাংলার জনপ্রিয় এই উৎসবটি বাংলাদেশে এখন আর খুব একটা দেখা যায় না। কিন্তু সাত সমুদ্দুর তের নদীর ওপারে সুদূর লন্ডনে বাঙালির চিরায়ত এই উৎসবটি হয়ে গেল গত রোববার। আর এতে অংশ নিয়েছিল বাংলাদেশি সাংবাদিক ও সংস্কৃতিকর্মীদের দুটো প্রতিষ্ঠান লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব ও বাংলা ভাষাভাষী রেডিও স্টেশন ‘বেতারবাংলা’।  বলা বাহুল্য, ব্রিটেনের বাঙালি কমিউনিটির ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে তা।

‘লন্ডন রোটারি ড্রাগন বুট ফেস্টিভ্যাল’ নামের এই উৎসবটি অনুষ্ঠিত হয় লন্ডনের ফেয়ারলপ ওয়াটার স্টপ সেন্টারে। উৎসবের আয়োজক টাওয়ার হ্যামলেটস রোটারি ক্লাব।  বাংলাদেশি সাংবাদিকদের প্রতিনিধিত্বশীল সংগঠন লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব ও বহির্বিশ্বে প্রচারিত ২৪ ঘন্টার একমাত্র বাংলা রেডিও স্টেশন ‘বেতারবাংলা’ ছাড়াও প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় ভিন্ন ভাষাভাষী মানুষদের বেশ ক’টি সংগঠন।

 নৌকাদৌড়ে অংশ নেন লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের নেতৃত্বে  ব্রিটেন থেকে প্রকাশিত-প্রচারিত বাংলা সাপ্তাহিক, টিভি চ্যানেল এবং বাংলানিউজ২৪.কম সহ বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন পত্রিকার প্রতিনিধিরা। বৈঠা টানার সাথে সাথে লন্ডনে সক্রিয় প্রতিটি বাংলা সংবাদমাধ্যমের নামে সেøাগানও দেওয়া হয় দৌড়ের সময়।

নৌকাদৌড় উৎসবকে কেন্দ্র করে ফেয়ারলপ ওয়াটার সেন্টারটি রোববার সাদা-কালো-বাদামি রংয়ের মানুষের পদভারে ছিল মুখরিত। আর বহু রংয়ের মানুষের ভীড়ে বাংলাদেশি সাংবাদিক ও সংস্কৃতিকর্মীরা গলা ছেড়ে গাইছিলেন ভাটিবাংলার বাউল কবিদের গান। তখন ভিন্ন ভাষাভাষী মানুষজনও তা উপভোগ করছিলেন দারুণ আনন্দে। ‘মারো টান হেইও’, ‘আরও জোরে হেইও’,  ‘জিতিল রে জিতিল, বাংলা প্রেসক্লাব জিতিল’ ইত্যাদি সেøাগান দিয়ে বাংলা মিডিয়া ও সংস্কৃতিকর্মীরা বৈঠা টানছিলেন। ভিন্ন ভাষার অনেক দর্শককে তখন খুশিতে তাদেও সাথে কন্ঠ  মেলাতে দেখা যায়।

‘কোন মেস্তরি নাও বানাইছে কেমন দেখা যায়/ ঝিলমিল ঝিলমিল করেরে ময়ূরপঙ্খী নায়’-বাউলসম্রাট শাহ আব্দুল করিমের এই গানের কলিও ছিল নৌকাদৌড়ে অংশগ্রহণকারীদের কন্ঠে।

ব্যতিক্রমী এই আয়োজনে কেন বাংলামিডিয়া কর্মীদের এই অংশ গ্রহণ?--বাংলানিউজের এপ্রশ্ন রাখা হয়  লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোহাম্মদ বেলাল আহমদের কাছে। জবাবে তিনি বলেন, ‘নৌকাদৌড় বাঙালির চিরায়ত একটি বিনোদনমূলক উৎসব। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে এটি খুব একটা দেখা যায় না। আবহমান বাংলার গ্রামীণ অনেক উৎসবই আজ বিলীন হওয়ার পথে। আমরা এগুলো ধরে রাখতে চাই। এজন্যে প্রয়োজন ভিন্ন ধরনের এক সংগ্রাম। বিদেশে বসবাস করে জীবন সংগ্রামে লিপ্ত আমাদের পক্ষে এই সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়া কষ্টকর হলেও, দেশে যারা আছেন তাদের দ্বারা এটি সম্ভব। সুদূর লন্ডনে নৌকা বাইচ অনুষ্ঠানে যোগদানের মাধ্যমে এই বার্তাই আমরা দেশে বসবাসরতদের দিতে চেয়েছি।’

শুধু তাই নয়, ব্রিটেনের সংবাদকর্মীদের কিছুক্ষণের জন্যে হলেও গ্রামবাংলার চিরায়ত লোকজ উৎসবের আমেজ দেওয়াও ছিল এই নৌকাদৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার একটি উদ্দেশ্য।

বেতার বাংলার কর্ণধার মুক্তিযোদ্ধা নাজিম চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, ‘বাঙালির গ্রামীণ বিনোদনের অন্যতম একটি সংস্কৃতি নৌকাদৌড়। এটি এখন অনেকটা যাদুঘরে স্থান পাওয়ার পর্যায়ে চলে গেছে। অথচ এই উৎসবটিই যখন ব্রিটেনের মতো একটি দেশে পালন করার উদ্যোগ নেয়া হয়, তখন বাঙালি হিসেবে নিজেদের ব্যর্থতাটি চোখে পড়ে। আর এই ব্যর্থতার দায়ভারটি যে দেশে বসবাসরতদের বেশি, লন্ডনের নৌকাদৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস ঐতিহ্য রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিতদের আমরা এ বিষয়টিই জানান দিতে চেয়েছি।’

বাংলাদেশ সময়: ১৯৫৫ ঘন্টা মে ১৭, ২০১১
Link to Article

0 comments:

Post a comment

Popular Posts