Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

যুদ্ধাপরাধী আবু সাঈদের নতুন ফতোয়া নিয়ে ব্রিটেনে বিতর্ক

লন্ডন: ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালে হত্যা, ধর্ষণ ও মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধী আবু সাঈদের দেওয়া নতুন এক ফতোয়া নিয়ে ব্রিটেনে শুরু হয়েছে বিতর্ক। ব্রিটিশ আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক এই ফতোয়া এক বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি দাড় করিয়েছে ব্রিটেনের মডারেট মুসলমানদের।

এই ফতোয়া রাজনীতি সচেতন মানুষকে নিয়ে গেছে ৭১ এ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে আবু সাঈদসহ তাঁর দোষরদের মানবতা বিরোধী অপকর্মের সময়কালে।

বিবাহ সম্পর্কের মধ্যে হলেও জোড়পূর্বক যৌনকর্মের চেষ্টা ব্রিটেনে বেআইনি হলেও শরিয়া কাউন্সিল অব ব্রিটেন এর প্রধান অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধী আবু সাঈদ সম্প্রতি ব্রিটেনের জনপ্রিয় ‘সমসা ব্লগ’ এ দেয়া এক সাক্ষাতকারে এর বিরুদ্ধে ফতোয়া দিয়ে ব্রিটেনের পুলিশ প্রশাসনসহ সর্বত্রো হইচই ফেলে দিয়েছেন।

আবু সাঈদ বলেছেন বিবাহ সম্পর্কের মধ্যে জোড়পূর্বক যৌনকর্মের চেষ্টাকে ধর্ষণ হিসেবে গন্য করা যায় না, বড়জোড় অশোভন বা অসভ্যতা বলা যায়, এর বেশি কিছু নয়। তিনি এই বিষয়টিকে ইসলামে বেআইনী বা নিষিদ্ধ বলতে নারাজ।

আবু সাঈদ তাঁর ফতোয়ায় বলেন, বিবাহ সম্পর্কের মধ্যে পারষ্পরিক সমঝোতার বাইরে যৌন সম্পর্ক কোন ক্রিমিনাল অফেন্স নয়। বিবাহ সম্পর্কের মধ্যে ধর্ষণ নামক কোন শব্দ নেই, হতে পারে এটি আক্রমনাত্মক বা অশোভন। এটির জন্যে দায়ী পকে অপরাধী বলা যাবে না।

কারণ যখন একজন নারী-পুরুষ বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়, তখন তারা এই মর্মে একমত হয়েই বিবাহ করে যে, যৌন সম্পর্ক বিবাহেরই একটি অংশ। সুতরাং বিবাহ সম্পর্কের মধ্যে যৌন সম্পর্ক বিরোধী কোন বিষয় থাকতে পারে না। অবশ্য স্বামী-স্ত্রী কোন একজনের ইচ্ছের বিরুদ্ধে যৌনকর্ম করা ঠিক নয়, এটি অশোভন। তবে ইসলামের দৃষ্টিতে বেআইনী নয়।

সাঈদ বলেন,  বিবাহ সম্পর্কের মধ্যের অনিচ্ছাকৃত যৌনকর্মকে ধর্ষণ হিসেবে সংজ্ঞায়িত করছে ব্রিটেন। এই ধারণা তাঁরা নিয়েছে পশ্চিমা বিশ্বের তথাকথিত সম অধিকারের স্লোগান থেকে। মানুষের ব্যক্তিগত ইচ্ছে অনিচ্ছার ক্ষেত্রেও তারা সমঅধিকারের বিষয়টির অপব্যবহার করছে। আমি মনে করি এটিও একটি আগ্রাসন। বিবাহ সম্পর্কের মধ্যে কোন পরে অনিচ্ছাকৃত যৌনকর্মের চেষ্টাকে ধর্ষণ বলাও একটি আগ্রাসন। এটি ছোট আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বড় আগ্রাসন।

সাঈদ বলেন ধর্ষণ ব্রিটেনে বেআইনি। এর শাস্তি তিন, পাঁচ বা তার চেয়েও বেশি কারাদণ্ড। বিবাহ সম্পর্কের মধ্যের অনিচ্ছাকৃত যৌনকর্মের চেষ্টাকেও যদি ধর্ষণ বলা হয় তাহলে এটি ইনসাফ হতে পারে না। এটি হবে ছোট্র আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বড় আগ্রাসন।

তিনি বলেন, ইসলাম মনে করে এটি ঠিক নয়। কারন বিবাহ মানেই যৌন সম্পর্কের অনুমতি। এতে কোন পক্ষ যদি অন্যপরে অনিচ্ছায়ও তা করতে চায়, তা বিবাহ চুক্তির কোন লঙ্ঘন নয়, বড়জোড় অসুন্দর।

এদিকে, অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধী আবু সাঈদের এই ফতোয়ার কথা প্রকাশ হওয়ায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে ব্রিটেনের বিভিন্ন মহলে। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় আবু সাঈদদের মানবতা বিরোধী অপকর্মের অভিযোগের কথা উল্লেখ করে বিভিন্ন ব্লগে প্রচারিত মন্তব্যে বলা হয়, এ ধরণের ফতোয়া আবু সাঈদরা দিতে পারেন, এটি ৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা প্রমাণও দিয়েছেন।

কোন কোন মন্তব্যে ১৯৯৫ সালে বিবিসি’র চ্যানেল ফোর-এর বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে তৈরী যুদ্ধাপরাধ বিষয়ক ডকুমেন্টারিতে ব্রিটেনে বসবাসরত তিন যুদ্ধাপরাধী চৌধুরী মঈনুদ্দিন, আবু সাঈদ ও লুৎফুর রহমানের মানবতা বিরোধী অপরাধের বিবরণের কথা উল্লেখ করে ঐ সময়ের ইউটুব ফুটেজও ব্যবহার করা হয়।

ব্রিটেনের মডারেট মুসলমানরাও আবু সাঈদের এই ফতোয়ায় বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখিন হয়েছেন। অনেকে ধারণা করছেন, সম্প্রতি লন্ডনে অনুষ্ঠিত মুসলিম কমিউনিটির একটি সেমিনারে কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান পাকিস্তানী বংশোদ্ভুত সাঈদা ওয়ারসিকে আসতে প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরুনের বাধাও আবু সাঈদের ঐ ফতোয়ার প্রতিক্রিয়া।

গত মার্চ মাসে চ্যানেল ফোর এ প্রচারিত ‘ব্রিটেন ইসলামিক রিপাবলিক’ ডকুমেন্টারির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বাংলানিউজকে কেউ কেউ বলছেন, ইসলামিক চরমপন্থিদের পরিকল্পনার অংশও হতে পারে সাঈদের এই ফতোয়া, যা ব্রিটেনের মুসলমানদের প্রতি আরো সন্দেহ বাড়িয়ে দেবে ব্রিটিশদের।

রেইপ ফর দ্যা অ্যাসোসিয়েশন অব চিফ পুলিশ অফিসার-এর মূখপাত্র ও চেশায়ারের চিফ কনস্টেবল ডেইভ ওয়াটন বলেছেন, শরিয়া আইন ব্রিটিশ আইনের বিকল্প হতে পারে না। আবু সাঈদের নতুন ফতোয়া ধর্ষণের শিকার মহিলাদের আইনের আশ্রয় নিতে নিরুৎসাহিতই করবে, এই সমস্যা সমাধানে কোন ভূমিকা রাখবে না।

এখানে উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় আল বদর বাহিনীর নেতা হিসেবে সিলেটে বিভিন্ন মানবতা বিরোধী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিলেন বলে আবু সাঈদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৫৫ঘণ্টা, অক্টোবর ২৭, ২০১০
Link to Article

0 comments:

Post a comment

Popular Posts