Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

সমকাল : 'নির্বাচন পর্যন্ত সরকার বৈধ' : মহাজোটে নেই, ১৪ দলে আছি : ড. কামাল

সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন
গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ১১ জানুয়ারি-পূর্বর্বতী নির্বাচনের মনোনয়ন দেওয়ার সময় জোটের সর্বসম্মত নীতিমালা মানা হয়নি। নীতিমালায় ঋণখেলাপি, কালো টাকার মালিক ও দুর্নীতিবাজদের মনোনয়ন না দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। তাই আমরা মহাজোটে নেই। তবে ১৪ দলীয় জোটে আছি। গতকাল সোমবার পূর্ব লন্ডনের মালবারি স্কুল মিলনায়তনে আয়োজিত এক সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, আগামী নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত র্বতমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার সাংবিধানিকভাবে বৈধ। এ সময় তিনি সরকারের কর্মকান্ডের প্রতি তার সমর্থনের কথা ব্যক্ত করেন। প্রায় একই সময় কাছাকাছি এলাকায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। ড. কামালের পূর্বঘোষিত সমাবেশ থাকা সত্ত্বেও একই দিন শেখ হাসিনার সমাবেশ আহ্বান করায় কমিউনিটিতে সৃষ্টি হয় মিশ্র প্রতিক্রিয়া। লন্ডনে হাসিনা-কামাল বৈঠকের যে গুঞ্জন ছিল একই দিনে দুটো সমাবেশ আহ্বান করায় সে গুঞ্জনও থেমে যায়।
সমাবেশে ড. কামাল হোসেন বলেন, আমরা ১৪ দলীয় জোটে আছি, থাকব কিন্তু মহাজোটে আমরা নেই। ১১ জানুয়ারি-পূর্বর্বতী নির্বাচনের মনোনয়ন দেওয়ার সময় জোটের সর্বসম্মত নীতিমালা মানা হয়নি। তিনি বলেন, আগামী নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত র্বতমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার সাংবিধানিকভাবে বৈধ। এতে কোনো বিভ্রান্তির সুযোগ নেই। গণফোরাম সভাপতি এ সময় সরকারের সংস্কার কর্মসূচিসহ বিভিন্ন কর্মকান্ডের প্রতি সমর্থন জানান।
তিনি বলেন, শুধু পরির্বতনের খাতিরে পরির্বতন নয়, চাই অর্থবহ পরির্বতন। আমরা মনে করি আইনের ঊধের্্ব কেউ নন। দুর্নীতির অভিযোগ উত্থাপন হলে আইনসম্মতভাবে সুষ্ঠু তদন্ত করতে হবে। হাজার হাজার কোটি টাকা কেউ যদি বিদেশে পাচার করে থাকেন, তবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি পাচারকৃত টাকাও দেশে ফিরিয়ে আনতে হবে।
সর্বস্তরের প্রবাসীদের নামে আয়োজিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মোকাবি্বর খান। সমাবেশে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি, সাংবাদিক ও লন্ডনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে ড. কামাল হোসেনের পূর্বঘোষিত সমাবেশের সময় শেখ হাসিনার জনসভা আহ্বান করায় বাংলাদেশি কমিউনিটির মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। গণফোরামের এক নেতা সমকালকে বলেন, পূর্বঘোষণা থাকা সত্ত্বেও শেখ হাসিনার জনসভা ঘোষণা সংকীর্ণ মানসিকতারই পরিচয়।
যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের নেতা সুলতান শরীফ এ বিষয়ে বলেন, আমরা সময় বের করতে পারছিলাম না। একমাত্র সোমবারই ছিল একটি দিন, যেদিন নেত্রী প্রবাসীদের সঙ্গে মিলিত হতে পারেন। তাই ড. কামাল হোসেনের সমাবেশের নির্ধারিত সময় থেকে ২ ঘণ্টা পিছিয়ে আমরা সমাবেশ আহ্বান করি।

১ মে' ২০০৭
Link To Article

0 comments:

Post a comment

Popular Posts