Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

বাংলানিউজ২৪ : ব্রিটেনে যুদ্ধাপরাধী চৌধুরী মঈনুদ্দিনের ভায়রা পরিচালিত স্কুল বন্ধ

লন্ডন: চ্যানেল ফোর এর ডেসপাচেস অনুষ্ঠানে প্রচারিত একটি ডকুমেন্টারিতে উত্থাপিত অভিযোগের ভিত্তিতে মধ্য ইংল্যান্ডের বার্মিংহামে জামায়াত নেতা মাওলানা ড. আব্দুর রহিম পরিচালিত একটি ইসলামি স্কুল বন্ধ হয়ে গেছে।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় বুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে জড়িত বলে অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধী, ব্রিটেনে বসবাসরত চৌধুরী মঈনুদ্দিনের ভায়রা মাওলানা রহিম পরিচালিত স্কুলটি ৮০’র দশকের প্রথম দিকে বার্মিংহামের স্মলহিথ এলাকায় প্রতিষ্ঠিত হয়।

ব্রিটিশ মূলধারায় আলোড়ন সৃষ্টিকারী চ্যানেল ফোর এর ‘লেশন ইন হেইট অ্যান্ড ভায়োলেন্স’ শীর্ষক ডেসপাচেস অনুষ্ঠানের ডকুমেন্টারিতে অভিযোগ করা হয়, বার্মিংহামের দারুল উলুম ইসলামিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে ছাত্রছাত্রীদের ভিন্ন ধর্মের প্রতি বিদ্বেষী ও চরমপন্থি মতবাদের প্রতি আকৃষ্ট করে শিক্ষাদান করা হয়।

বিশিষ্ট উপস্থাপিকা তাজিন আহমেদের উপস্থাপনায় প্রচারিত এই ডকুমেন্টারিতে গোপনে ধারণ করা  বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজ প্রদর্শন করে বলা হয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাদানের নামে সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়ানো হচ্ছে এবং ধর্মের নামে সহিংসতার পক্ষে তাদের উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে।

একই অনুষ্ঠানে ব্রিটেনের ইয়র্কশায়ারস্থ কিথলি এলাকার একটি মাদ্রাসায় ছাত্রছাত্রীদের উপর শারীরিক নির্যাতনেরও অভিযোগ আনা হয়। ওয়েস্ট ইয়র্কশায়ারের কিথলি মারকাজুল জামেয়া মসজিদে কোরআন শিক্ষা দেওয়ার সময় ছাত্রদের ওপর শারীরিক নির্যাতন করা হয়।

ডকুমেন্টারিতে এমন অভিযোগ আনার পর পুলিশ ওই মাদ্রাসার একজন শিক্ষককে গ্রেপ্তার করলেও পরে ওই শিক্ষক জামিনে মুক্তি পান।

দারুল উলুম কর্তৃপ বলছেন নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে হাফ টার্মের আগেই পুরো ফেব্রুয়ারি মাসের জন্য স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে স্থানীয় বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে, পুলিশই দারুল উলুম বন্ধ করে দিয়েছে। এ ব্যাপারে অবশ্য পুলিশের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

ডকুমেন্টারির ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, শিক্ষক শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলছেন, পশ্চিমা সামাজিক রীতিনীতি গ্রহণ করলে পরকালে কঠোর শাস্তি ভোগ করতে হবে। পাঠদানরত শিক্ষক অতিরিক্ত উদার মুসলমানদেরও বয়কট করার উপদেশ দিচ্ছেন শিক্ষার্থীদের।

ভিডিও ফুটেজের অন্য একটি দৃশ্যে দেখানো হয়, ধর্মে অবিশ্বাসীরা মানুষের মধ্যে সবচেয়ে নিকৃষ্ট, হিন্দুরা মূত্রপান করে ইত্যাদি প্রসঙ্গ উল্লেখ করে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের জিজ্ঞেস করছেন এদেরকে কি আমরা বিচারশক্তি সম্পন্ন প্রজ্ঞাবান হিসেবে বিবেচনা করবো? নিশ্চয়ই না।

এদিকে ডকুমেন্টারিটি তৈরির পর ওয়েস্ট মিডল্যান্ড পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় প্রমাণ না পাওয়ায় অফকম (ইন্ডিপেনডেন্ট রেগুলেটর অ্যান্ড কম্পিটিশন অথরিটি ফর দ্য ইউকে কমিউনিকেশন ইন্ডাস্ট্রি) এর কাছে এর প্রচার বন্ধ রাখার আবেদন করে।

কিন্তু অফকম তা নাকচ করে দিলে, ডকুমেন্টারি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান উল্টো পুলিশ ও ক্রাউন প্রসিকিউশন সার্ভিসের বিরুদ্ধে তাদের ডকুমেন্টারি বিকৃত করার আইনি অভিযোগ আনে। ফলে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ পাউন্ড তিপূরণ প্রদানের সম্মতির ভিত্তিতে বিষয়টি সুরাহা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ২০৪৬ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১১
Link to Article

0 comments:

Post a comment

Popular Posts