Syed Anas Pasha

Syed Anas Pasha

সমকাল: শেখ হাসিনার আপাতত ঠিকানা লন্ডন

সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন
আপাতত লন্ডনই হবে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার র্বতমান ঠিকানা। তবে অন্তঃসত্ত্বা মেয়েকে দেখতে তিনি দু-এক সপ্তাহের জন্য আমেরিকা যেতে পারেন। যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতা এমএ রহিম জানান, র্বতমানে তিনি লন্ডনে ভাড়া করা একটি ফ্ল্যাটে অবস্থান করছেন। লন্ডনে তার অবস্থান দীর্ঘদিনের হলে তিনি ছোট বোন শেখ রেহানার দুই বেডরুমের ছোট্ট ফ্ল্যাটেই থাকবেন।
রোববার দেশে ফিরতে ব্যর্থ হয়ে শেখ হাসিনা তার ফ্ল্যাটে ফিরলে কয়েকজন ব্রিটিশ এমপি টেলিফোনে তার খোঁজখবর নেন। এমপিরা শেখ হাসিনার প্রতি সহানুভূতি জানিয়ে তার পাশে থাকার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের একটি সূত্র সমকালকে এ খবর জানায়। বিমানবন্দর থেকে ফিরে আসার পর হাসিনাকে খুবই ক্লান্ত দেখাচ্ছেল বলে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের এক নেতা জানান।
হাউস অব লর্ডসের সদস্য ব্যারোনেস পলা মঞ্জিলা উদ্দিন রোববার রাতে শেখ হাসিনার সঙ্গে তার ফ্ল্যাটে দেখা করেন। এ সময় পলা ও হাসিনা বেশ কিছুক্ষণ একানেস্ন আলাপ করেন।
সোমবার কয়েকটি বিদেশি মিডিয়াকে শেখ হাসিনা সাক্ষাৎকার দেন। একটি সূত্র জানায়, দেশে ফেরার দাবিতে ইউরোপিয়ান পার্লামেনাউটর নেতাদের সঙ্গে লবি করতে শেখ হাসিনা নেতা-কর্মীসহ ব্রাসেলস যেতে পারেন। ইউরোপিয়ান পার্লামেনাউটর প্রেসিডেন্টসহ শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে শেখ হাসিনার বৈঠক আয়োজনের জন্য লন্ডনে অবস্থানরত তার সমর্থকরা চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন। কমনওয়েলথ মহাসচিব ডন ম্যাককিননের সঙ্গে শেখ হাসিনার সাক্ষাতের জন্য এর মধ্যে সময় চাওয়া হয়েছে। ফদ্ধান্সের নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত থাকায় ম্যাককিনন সময় দিতে পারছেন না বলে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জানায়। তবে আশা করা হচ্ছে, দু-একদিনের মধ্যেই তারা সময় পেয়ে যাবেন।
লন্ডনে অবস্থানরত ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি অনিল দাসগুপ্ত সমকালকে বলেন, নেত্রীর দেশে ফেরার দাবিতে ইউরোপব্যাপী আন্দোলন গড়ে তোলার পরিকল্পনা করছেন তারা। জার্মানির রাজধানী বালর্িনে বসবাসকারী অনিল আরো বলেন, ইউরোপের প্রত্যেকটি দেশের সরকারের সঙ্গে এ বিষয়ে তারা লবি করবেন।
যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ কাশেম জানান, নেত্রী দেশে না ফেরা পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। তারা বলেন, নেত্রীর দেশে ফেরা নিশ্চিত করতে আন্দোলনের বিভিন্ন কৌশল নিয়ে শীর্ষ নেতাদের মধ্যে আলোচনা চলছে।


শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেফতারি পরোয়ানা, দেশে ফেরার ওপর নিষেধাজ্ঞা স্থগিত হওয়ার খবর বিশ্ব মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচার করা হয়েছে।
'শেখ হাসিনা ওয়ারেন্ট সাসপেন্ডেড' শিরোনামে গতকাল সোমবার বিবিসির এক খবরে বলা হয়, বাংলাদেশের একটি আদালত সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গ্রেফতারি পরোয়ানা স্থগিত করেছে। একদিন আগে তার বিরুদ্ধে এ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। গত অক্টোবরে এক সংঘষরাউ ৪ বিক্ষোভকারী নিহত হওয়ায় শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। পলাতক দেখিয়ে এ মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। এদিকে সেনা সমর্থিত সরকার তাকে দেশে ফিরতে বাধা দিচ্ছে। গত রোববার বিবিসিতে 'বাংলাদেশ এক্স পিএম'স রিটার্ন ্ব্নকড' শিরোনামে অপর এক খবরে বলা হয়, সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশে ফেরার ওপর বাংলাদেশ সরকার নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ লন্ডন থেকে তাকে দেশে ফেরার বোডর্িং পাস দেওয়া হয়নি। সেনা সমর্থিত সরকার শেখ হাসিনাকে না নেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সব বিমান সংস্থাকে অনুরোধ জানিয়েছে। দেশে ফিরলে হাসিনাকে গ্রেফতার করা হবে বলে সেদেশের সরকার ঘোষণা দিয়েছে। তবে শেখ হাসিনা দেশে ফেরার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।
'হাসিনা আপিলস টু ওয়ার্ল্ড লিডারস' শিরোনামে ভারতের এনডিটিভির ওয়েবসাইটের এক খবরে বলা হয়, বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফেরার ব্যাপারে সেদেশের সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে বিশ্বনেতাদের কাছে আবেদন করেছেন। দেশে ফিরতে না দেওয়ায় গত রোববার লন্ডনে তিনি ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ায় বলেন, 'আমি পলাতক নই। আমি দেশে ফিরতে চাই।'
'হাসিনা : আই উইল ফাইট চাজরাউস' শিরোনামে আল জাজিরার ওয়েবসাইটে এক খবরে বলা হয়, বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে দায়ের করা গ্রেফতারি পরোয়ানা সেদেশের একটি আদালত স্থগিত করে দিয়েছে। এদিকে শেখ হাসিনা বলেছেন, তাকে দেশে ফিরে যেতে দিলে তিনি তার বিরুদ্ধে দায়ের করা হত্যা ও দুর্নীতির মামলা মোকাবেলা করবেন।

২৪ এপ্রিল'২০০৭
Link to Article

0 comments:

Post a comment

Popular Posts